সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ১০:৩১ অপরাহ্ন

শিরোনাম
রিটার্ন জমার সময় বাড়ানো হয়েছে ডিআরইউ’র সভাপতি নোমানী, সম্পাদক মসিউর কোম্পানীগঞ্জে তথ্য প্রযুক্তি আইনে এক ব্যক্তি গ্রেফতা সাতক্ষীরা প্রতিবন্ধী বিদ্যালয় সমূহের এমপিও ভুক্তির দাবীতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত নোয়াখালীতে লাইসেন্সবিহীন হাসপাতাল বন্ধ ঘোষণার নির্দেশ, বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড ও জরিমানা এডিপি বাস্তবায়নে ভূমি মন্ত্রণালয়ের অগ্রগতি জাতীয় অগ্রগতির হারের চেয়ে বেশি রানীশংকৈল রামরায় দিঘীতে অতিথি পাখির আগমনে মুখরিত মুন্সীগঞ্জে বাংলাদেশ কালেক্টরেট সহকারী সমিতি পূর্ণ দিবস কর্মবিরতি ভাস্কর্য অপসারণের নামে দেশকে অস্থিতিশীল করার চক্রান্ত প্রতিহত করুন -তথ্য প্রতিমন্ত্রী বিনামূল্যে ৩ কোটি করোনার টিকা দেওয়া হবে: মন্ত্রিপরিষদ সচিব

গার্মেন্টস কারখানা খুলে দেশকে ঝুকির মধ্যে পেলে দিচ্ছে সরকার : বাম ঐক্য ফ্রন্ট

প্রেস বিজ্ঞপ্তি : গার্মেন্টস কারখানা খুলে দেশকে ঝুকির মধ্যে পেলে দিচ্ছে সরকার বলে বিবৃতি দিয়েছে বাম ঐক্য ফ্রন্ট। ফ্রন্টের সমন্বয়ক কমরেড নাসির উদ্দীন আহম্মদ নাসু, বাসদ (মাহবুব) এর আহবায়ক সন্তোষ গুপ্ত, সমাজতান্ত্রিক পার্টির সাধারণ সম্পাদক সারওয়ার মোর্শেদ, কমিউনিস্ট ইউনিয়নের আহবায়ক ইমাম গাজ্জালী, বাসদ (মাহবুব) এর কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যতম সদস্য কমরেড শওকত হোসেন আহমেদ, গণমুক্তি ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় নেতা কমরেড রাজা মিঞা সংবাদপত্রে এক যুক্ত বিবৃতি প্রদান করেন।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন – গার্মেন্টস শ্রমিকদের নিয়ে মালিক, সরকারের মরণ খেলা চলছেই। প্রথমে মালিকরা ছাঁটাই ও বেতন দেওয়ার কথা বলে বিপদগ্রস্ত শ্রমিকদের একবার নিয়ে আসে খালি হাতে ফিরিয়ে দিয়েছিলো। আবার সেই অপকৌশলের ফাঁদে ফেলে কারখানা খুলে দেওয়া হয়েছে। শ্রমিকরা সকলে এক যোগে বলছেন এইভাবে আবারও মালিক পক্ষ আমাদের কাজে যোগ দিতে বলেছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলছেন শ্রমিকরা ভুল করে এসেছেন।

এইবিষয়ে সরকারের কার্যকর উদ্যোগ হীনতা ও বিভ্রান্তিকর বক্তব্য প্রমান করে তাদের অবস্থান মালিকদের পক্ষে। প্রথম দফায় শ্রমিকদের নিয়ে আসা ও ফিরিয়ে দেওয়ার মধ্যে দিয়ে শুধু শ্রমিকরাই আক্রান্ত হননি সারাদেশে করোনা ছড়িয়েছে। এইবারের পরিণতি আরও ভয়াবহ রূপ নিবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। সাধারণ ছুটি, লকডাউন চলছে, সকলকে শারীরিক দুরত্বে থাকার কথা বলা হচ্ছে। অন্যদিকে কারখানা খুলে দেওয়া হয়েছে, শ্রমিকদের বেতন ভাতা দেওয়া হয়নি, চলছে লে-অফ, ছাঁটাই। প্রতিবাদ করলে পুলিশ ও মাস্তান দিয়ে পেটানো হচ্ছে শ্রমিকদের। সরকার মালিকদের এইধরণের নিষ্ঠুরতা ও দ্বিচারিতা অত্যন্ত অমানবিক।

অন্যদিকে এখনও পর্যন্ত কোথাও করোনা চিকিৎসার জন্য শত ভাগ প্রস্তুত নয়। আইসিইউ, অক্সিজেন, ভেন্টিলেটর একটা থাকলে একটা নেই। চিকিৎসক, নার্সদের পর্যাপ্ত সুরক্ষা ব্যবস্থা নেই। যার কারণে প্রতিনিয়ত তারা আক্রান্ত হচ্ছে। অসুস্থ মানুষের ভোগান্তি বেড়েই চলেছে। চিকিৎসা ব্যবস্থা কার্যত ভেঙ্গে পড়েছে। এই সময়ে সরকার গণস্বাস্থ্যের কীট নিয়েও তালবাহানা করছে। সরকার, মালিক ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের এধরণের নিষ্ঠুর, দায়িত্বহীন আচরণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বাম ঐক্য ফ্রন্ট নেতৃবৃন্দ।

তারা অবিলম্বে শ্রমিকদের তিন মাসের বেতন দিয়ে কারখানা বন্ধ, চিকিৎসক, নার্স ও চিকিৎসা কর্মীদের পর্যাপ্ত সুরক্ষা ও গণস্বাস্থ্যের কীট যথার্থ নিয়মে পরীক্ষা করে সফল হলে কাজে লাগানোর জোর দাবি জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগীতায় :বাংলা থিমস| ক্রিয়েটিভ জোন আইটি