শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ০৮:২৮ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
নোয়াখালীতে তাজকিয়া সোপ ফ্যাক্টরির উৎপাদন উদ্বোধন ডিআরইউ সদস্য লেখক সম্মাননা` ২০২০ পেলেন আবু আলী মিলনের আত্মত্যাগে স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে নতুন গতি সঞ্চারিত হয়: প্রধানমন্ত্রী এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের ২টি ইসলামিক ব্যাংকিং শাখার উদ্বোধন দরিদ্রদের নির্মাণ করে দেওয়া হবে স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট আমেরিকানরা সম্পূর্ণ অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন করেছে : বাইডেন মেধাকে দেশের কাজে লাগাতে সরকারি কর্মচারিদের প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর ব্রাসিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু চেয়ার প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত চীন-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশীপ সেন্টারের রক্তদান কর্মসূচি সম্পন্ন হায়রে জীবন যেখানে যেমন

বরগুনা পার হচ্ছে ‘আম্পান’, বাতাসের বেগ ৮০ কিলোমিটার

 নিউজ ডেস্ক : উপকূলীয় জেলা বরগুনা অতিক্রম করছে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ‘আম্পান’।

বরগুনা জেলা ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচির (সিপিপি) উপ-পরিচালক কিশোর কুমার সরদার বুধবার সন্ধ্যার দিকে এতথ্য জানান।

তিনি বলেন, সন্ধ্যা ৬টার দিকে বরগুনায় বাতাসের গতিবেগ ৭০ থেকে ৮০ কিলোমিটার রয়েছে। সাথে দমকা হাওয়াসহ ঝড়োবৃষ্টি হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় ‘আম্পান’ বরগুনা অতিক্রম করছে বলে আমরা প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি।

বরগুনা জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ্ বলেন, আমাদের কাছে যে তথ্য আছে তাতে বিকেল সাড়ে ৫টা থেকে বরগুনা অতিক্রম করছে ঘূর্ণিঝড় ‘আম্পান’। বরগুনা অতিক্রম করতে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত সময় লাগতে পারে।

এদিকে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, অতিপ্রবল এই ঘূর্ণিঝড় বুধবার বিকেল ৪টা থেকে সাগর উপকূলের পূর্ব দিকে সুন্দরবন ঘেঁষা পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশ দিয়ে অতিক্রম করছে। অতিক্রমের সময় বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ১৬০ থেকে ১৮০ কিলোমিটারের মধ্যে রয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরিচালক সামছুদ্দীন আহমেদ এসব তথ্য জানিয়েছেন।

এর আগে অধিদপ্তরের বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বিকেল ৩টায় ঘূর্ণিঝড়টি চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৪২০ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৪৩০ কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ২০০ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ২৫০ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছিল।

ওই বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৮৫ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১৮০ কিলোমিটার যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ২০০ কলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের নিকটে সাগর খুবই উত্তাল রয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় ‘আম্পানের’ কারণে মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। উপকূলীয় জেলা সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, ঝালকাঠি, পিরোজপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, বরিশাল, লক্ষ্মীপুর, চাঁদপুর এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহ ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেতের আওতায় থাকবে।

এ ছাড়া চট্রগ্রাম ও কক্সবাজার সমুদ্র বন্দরকে দেখাতে বলা হয়েছে ৯ নম্বর বিপদ সংকেত। উপকূলীয় জেলা নোয়াখালী, ফেনী, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার তাদের অদূরবর্তী দ্বীফ ও চরসমূহ ৯ নম্বর বিপদ সংকেতের আওতায় থাকবে।

এতে আরও বলা হয়, ঘূর্ণিঝড় এবং দ্বিতীয় পক্ষের চাঁদের সময়ের শেষ দিনের প্রভাবে উপকূলীয় জেলা সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, ঝালকাঠি, পিরোজপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, বরিশাল, লক্ষ্মীপুর, চাঁদপুর, নোয়াখালী, ফেনী ও চট্টগ্রাম এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহের নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ১০-১৫ ফুট অধিক উচ্চতার জলোচ্ছাসে প্লাবিত হতে পারে।

ঘূর্ণিঝড় অতিক্রমকালে সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, ঝালকাঠি, পিরোজপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, বরিশাল, লক্ষ্মীপুর, চাঁদপুর, নোয়াখালী, ফেনী ও চট্টগ্রাম জেলা সমূহ এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহে ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণসহ ঘণ্টায় ১৪০-১৬০ কিলোমিটার বেগে দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

নিউজটি শেয়ার করুন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগীতায় :বাংলা থিমস| ক্রিয়েটিভ জোন আইটি