মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ০৭:৩৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
রিটার্ন জমার সময় বাড়ানো হয়েছে ডিআরইউ’র সভাপতি নোমানী, সম্পাদক মসিউর কোম্পানীগঞ্জে তথ্য প্রযুক্তি আইনে এক ব্যক্তি গ্রেফতা সাতক্ষীরা প্রতিবন্ধী বিদ্যালয় সমূহের এমপিও ভুক্তির দাবীতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত নোয়াখালীতে লাইসেন্সবিহীন হাসপাতাল বন্ধ ঘোষণার নির্দেশ, বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড ও জরিমানা এডিপি বাস্তবায়নে ভূমি মন্ত্রণালয়ের অগ্রগতি জাতীয় অগ্রগতির হারের চেয়ে বেশি রানীশংকৈল রামরায় দিঘীতে অতিথি পাখির আগমনে মুখরিত মুন্সীগঞ্জে বাংলাদেশ কালেক্টরেট সহকারী সমিতি পূর্ণ দিবস কর্মবিরতি ভাস্কর্য অপসারণের নামে দেশকে অস্থিতিশীল করার চক্রান্ত প্রতিহত করুন -তথ্য প্রতিমন্ত্রী বিনামূল্যে ৩ কোটি করোনার টিকা দেওয়া হবে: মন্ত্রিপরিষদ সচিব

কিংবদন্তি কণ্ঠশিল্পী এন্ড্রু কিশোর আর নেই

নিউজ ডেস্ক : চলে গেলেন কিংবদন্তি কণ্ঠশিল্পী এন্ড্রু কিশোর। ক্যান্সারের সঙ্গে দীর্ঘদিন লড়াই করে সোমবার সন্ধ্যা ৭টায় রাজশাহীর একটি হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তার বয়স হয়েছিল ৬৪ বছর।

এন্ডু কিশোরের দুলাভাই ডা. প্যাট্রিক বিপুল বিশ্বাস এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এন্ডু কিশোর সিঙ্গাপুরে ক্যান্সারের চিকিৎসা নিয়ে গত ২০ জুন রাজশাহীতে বোন ডা. শিখা বিশ্বাসের বাসায় ওঠেন। বোন ও দুলাভাই দুজনই চিকিৎসক হওয়ায় তাদের তত্ত্বাবধানেই তিনি চিকিৎসা নিচ্ছিলেন তিনি।

এর আগে গত বছরের ৯ সেপ্টেম্বর চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে নেওয়া হয়েছিল এন্ড্রু কিশোরকে। সেখানে ১৮ সেপ্টেম্বর তার শরীরে ব্লাড ক্যান্সার ধরা পড়ে। সেখানে কয়েক মাস তার চিকিৎসা চলে। চিকিৎসকরা ইতিবাচক মন্তব্য করায় দেশে ফেরার প্রস্তুতিও শুরু হয়। হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়। মে মাসে ১৩ তারিখ দেশে ফেরার টিকিট নেওয়া হলেও তিনি দুর্বল বোধ করায় তা বাতিল করা হয়। দ্বিতীয়বার টিকিট নেওয়া হয় ১০ জুনের। কিন্তু ২ জুন এন্ডু কিশোর হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। ৪ জুন আবার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ৯ জুন আবার পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হয়। তার পর চিকিৎসকরা জানিয়ে দেন, তাদের আর করার কিছু নেই।

এন্ডু কিশোরের জন্ম রাজশাহীতে। সেখানেই কেটেছে তার শৈশব ও কৈশোর। তিনি প্রাথমিকভাবে সংগীতের পাঠ শুরু করেন রাজশাহীর আবদুল আজিজ বাচ্চুর কাছে। একসময় গানের নেশায় রাজধানীতে ছুটে যান। মুক্তিযুদ্ধের পর তিনি রবীন্দ্র সংগীত, নজরুল সংগীত, আধুনিক গান, লোকগান ও দেশাত্মবোধক গানে রেডিওর তালিকাভুক্ত শিল্পী হন।

১৯৭৭ সালে আলম খানের সুরে ‘মেইল ট্রেন’ চলচ্চিত্রে ‘অচিনপুরের রাজকুমারী নেই যে তাঁর কেউ’ গানের মধ্য দিয়ে এন্ডু কিশোরের চলচ্চিত্রে প্লে­-ব্যাক যাত্রা শুরু হয়। এর দুই বছর পর ১৯৭৯ সালে ‘ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে’ গানের মধ্য দিয়ে তুুমুল পরিচিত পান এন্ড্রু কিশোর। গানটির গীতিকার মনিরুজ্জামান মনির এবং সুরকার ও সংগীত পরিচালক ছিলেন আলম খান।

এরপর আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। তার খুব জনপ্রিয় গানের মধ্যে রয়েছে ‘জীবনের গল্প আছে বাকি অল্প’, ‘হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস’, ‘ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে’, ‘আমার সারা দেহ খেয়ো গো মাটি’, ‘আমার বুকের মধ্যেখানে’, ‘আমার বাবার মুখে প্রথম যেদিন শুনেছিলাম গান’, ‘সবাই তো ভালোবাসা চায়’, ‘পড়ে না চোখের পলক’, ‘ওগো বিদেশিনী’, ‘তুমি মোর জীবনের ভাবনা’, ‘আমি চিরকাল প্রেমেরও কাঙ্গাল’ প্রভৃতি।

এন্ড্রু কিশোর আটবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন।

তার দুই সন্তান- একটি ছেলে ও একটি মেয়ে। অস্ট্রেলিয়ায় থেকে তারা পড়াশুনা করছেন। সিডনিতে গ্রাফিকস ডিজাইনে পড়ছেন মেয়ে মিনিম এন্ড্রু সংজ্ঞা। আর ছেলে জে এন্ড্রু সপ্তক পড়ছেন ফ্যাশন ডিজাইনিংয়ে। তিনি থাকেন মেলবোর্নে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কিংবদন্তি এই শিল্পীর মৃত্যুতে গভীর শোক করেছেন। শোকবার্তায় তিনি বলেন, এন্ড্রু কিশোর তার গানের মাধ্যমে মানুষের হৃদয়ে স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগীতায় :বাংলা থিমস| ক্রিয়েটিভ জোন আইটি